রাজমাতা শিবগামীর নির্দেশেই বাহুবলীকে হত্যা করে কাটাপ্পা!

বিনোদন ডেস্ক : প্রকাশ্যে এল বহু প্রতীক্ষিত ‘বাহুবলী ২’-এর প্রথম রিভিউ৷ তবে ভারতে নয়, প্রথম রিভিউটি প্রকাশ্যে এসেছে সংযুক্ত আরব আমিররাত থেকে৷ উমর সাঁধু নামের এক ব্যক্তি, যিনি নিজেকে একজন ফিল্ম ও ফ্যাশন সমালোচক বলে দাবি করেছেন, টুইটারে এই রিভিউ পোস্ট করেছেন৷ এই সিনেমাটিকে ‘ফাইভ স্টার’ দিয়েছেন তিনি৷ প্রভাস নাকি তার জীবনের সেরা পারফরম্যান্সটা দিয়েছেন এই সিনেমায়৷ একইসঙ্গে রানা দাগ্গুবাতি, অনুষ্কা শেট্টি ও তামান্নাও নাকি দারুন অভিনয় করেছেন৷

 

 

 

 

 

রিভিউয়ে উমর সাঁধু লিখেছেন, যে কোনও হলিউডি সিনেমাকে টক্কর দিতে পারে বাহুবলী-২৷ হলিউডের জনপ্রিয়তম সিনেমা ‘হ্যারি পটার’ সিরিজ বা ‘লর্ডস অফ রিং’কেও হার মানাবে বাহুবলী ২৷ সাউন্ড, ভিএফএক্স, এডিট, সিনেমাটোগ্রাফি ও স্ক্রিনপ্লেতে মার্ভেল-এর সিনেমাকেও দশ গোল দেবে এস এস রাজামৌলির নয়া সিনেমা, বলছেন সাঁধু৷ মধ্য প্রাচ্যের কয়েকটি দেশে আজই মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি৷ তবে ভারতে রিলিজ করবে শুক্রবার৷ সংযুক্ত আরব আমিররাতে সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা নাকি সিনেমাটি শেষ হতে আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে হাততালিও দিয়েছেন৷

 

 

 

 

সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন বা সিবিএফসি-র এক সদস্যও একই কথা জানিয়েছেন সংবাদপত্র ডিএনএ-কে৷ তিনি জানিয়েছেন, বাহুবলী’র প্রথম অংশের তুলনায় দ্বিতীয় অংশটি একটু লম্বা, প্রায় তিন ঘন্টার৷ কিন্তু পর্দা থেকে নাকি এক মুহূর্তও চোখ সরানো যাবে না৷ মূল সিনেমার কোনও দৃশ্য, কোনও সংলাপই কাটেনি সেন্সর বোর্ড৷ অ্যাকশন সিকোয়েন্সে এবার আরও বেশি স্পেশ্যাল এফেক্ট ব্যবহার করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন সেন্সর বোর্ডের ওই কর্তা৷

 

 

 

 

মেল গিবসনের ‘হ্যাকস রিজ’-এর মতোই নাকি টানটান বাহুবলী ২-এর অ্যাকশন সিকোয়েন্স৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, যে প্রশ্নের উত্তর জানতে গত ২ বছর ধরে বাহুবলী’র ফ্যানরা অপেক্ষা করছেন, সেই উত্তরটা জানলে তারা চমকে উঠবেন৷ তিনি অবশ্য সেই রহস্যটা ভেঙে বলতে চাননি৷ দু’টি সিংহকে একসঙ্গে খাঁচায় ছেড়ে দিলে যেমনটা দেখতে লাগবে, বাহুবলীর সঙ্গে ভাল্লাল দেবের যুদ্ধের দৃশ্যগুলি নাকি ততটাই হিংস্র লেগেছে দেখতে৷

 

 

 

 

তবে ‘কাটাপ্পা কেন বাহুবলীকে মারল’ এই প্রশ্নের একটি উত্তর বুধবার রাত থেকেই অনেকের হোয়াটসঅ্যাপ বা মেসেঞ্জারে ঘুরছে৷ কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, দেবী মাহেশ্বরীর অভিশাপ থেকে বাঁচাতেই নাকি কাটাপ্পা পিছন থেকে বাহুবলীর শরীরে তরোয়াল ঢুকিয়ে দেন৷ এমনটা না করলে নাকি বাহুবলী যুদ্ধক্ষেত্রে পাথরের মূর্তি হয়ে যেতেন৷ তবে সেই তরোয়ালের আঘাতেও নাকি বাহুবলী মরেননি, সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটাই পোস্ট করছেন অনেকে৷

 

 

 

 

তবে আরেকটি ওয়েবসাইটের দাবি, রাজমাতা শিবগামীর কথা অগ্রাহ্য করে বাহুবলী দেবসেনাকে বিয়ে করাতেই নাকি বেজায় চটে যান তিনি৷ তাঁর স্বামী বিজ্জ্বলা দেব ও সন্তান ভল্লাল দেব বারবার তাকে বোঝাতে থাকেন, এমনটা করে রাজ পরিবার ধ্বংস করতে চাইছেন বাহুবলী৷ তখনই নাকি মেজাজ হারিয়ে শিবগামীদেবী তার একান্ত অনুচর কাটাপ্পাকে নির্দেশ দেন, বাহুবলীকে হত্যা করার৷ তবে এগুলো সবই জল্পনা, শোনা কথা৷ সত্যিটা জানতে এখনও বেশ কয়েক ঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে আমাকে-আপনাকে৷

 

 

 

 

 

তবে সেন্সর বোর্ডের ওই কর্তা ডিএনএ-র কাছে আক্ষেপ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, এভাবে বাহুবলী সিরিজ শেষ হবে, সেটা তিনিও আঁচ করতে পারেননি৷ দর্শকরা যেমন সিনেমাটি দেখে আনন্দে উদ্বেল হয়ে উঠবেন, তেমনই শেষে এসে কেঁদে ফেলবেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *