ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন যে সকল বলিউড তারকা

প্রত্যেকে নিজের ধর্ম পালন করেন স্বাধীনভাবে। তারকারাও বাইরে নন। প্রায়ই তারকাদের মধ্যে ধর্মান্তরিত হওয়ার বিষয় লক্ষ্য করা যায়। বলিউড তারকারা এক্ষেত্রে এগিয়ে। বলিউডের বেশ কয়েকজন তারকা রয়েছেন যারা নিজের ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হয়েছেন। কেউ হয়েছেন ভালো লাগা থেকে। আবার কেউ গ্রহণ করেছেন নিজের প্রেমের সম্পর্কের পরিণতি ঘটাতে। সেসব ধর্মান্তরিত তারকাদের নিয়ে সাজানো হয়েছে আজকের আয়োজন

 

এ আর রহমান :

ভারতের বিখ্যাত সঙ্গীত পরিচালকদের একজন অস্কারজয়ী এ আর রহমান। সঙ্গীত জগতে সারা বিশ্বের কাছে এক নামেই পরিচিত তিনি। ক্যারিয়ারের শুরুতে তিনি হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছিলেন। তার পূর্বের নাম ছিল এ এস দিলীপ কুমার। সুফি সঙ্গীতের প্রেরণা থেকেই ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হন এ আর রহমান। ১৯৮৪ সালে তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে দিলীপ কুমার থেকে ‘আল্লা রাখা রহমান’ অর্থাৎ এ আর রহমান-এ পরিণত হন তিনি।

 

 

ধর্মেন্দ্র-হেমা মালিনি :

৭০’র দশকের সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত ও সফল বলিউড তারকা যুগল ধর্মেন্দ্র-হেমা মালিনি। হেমার জন্ম একটি হিন্দু তামিল পরিবারে। প্রেমিক ধর্মেন্দ্রও হিন্দু ছিলেন। কিন্তু তাদের সম্পর্ক বিবাহে রূপ নিতে পারছিল না। কেননা ধর্মেন্দ্র ছিলেন বিবাহিত। তার প্রথম বিয়ে করা স্ত্রীর নাম ছিল প্রকাশ কর। হিন্দু শাস্ত্রমতে প্রথম স্ত্রী জীবিত থাকতে স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করতে পারবে না। তাই বিয়ের জন্য তাদের সামনে একটি পথই খোলা ছিল। আরও সেটি হল ধর্মান্তরিত হওয়া। করলেন ও তাই। দুজনই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ১৯৭৯ সালের ২১ আগস্ট ইসলাম ধর্ম মতে বিয়ে করেন হেমা মালিনি ও ধর্মেন্দ্র। বিয়ের পর হেমার নাম বদলে রাখা হয় আয়েশা আরও ধর্মেন্দ্রর নাম রাখা হয় দেলওয়ার খান।

 

 

শর্মিলা ঠাকুর :

বলিউডের স্বনামধন্য অভিনেত্রীদের তালিকায় রয়েছেন অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুর। অভিনয়ে অসামান্য অবদানের জন্য ২০১৩ সালে পদ্মভূষণ পদকে ভূষিত হন এ অভিনেত্রী। প্রেমের সম্পর্কের পরিণতি দিতেই ধর্ম পরিবর্তনের পথ বেছে নেন এ অভিনেত্রী। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তিনি মনসুর আলি পতৌদিকে বিয়ে করেন। শর্মিলার তিন সন্তানের সাইফ আলি খান, সোহা আলি খান, সাবা আলি খান প্রত্যেকেই ইসলাম ধর্মের অনুসারী ধর্মান্তরিত হওয় পর তার নামকরণ করা হয় আয়েশা।

 

 

অমৃতা সিং :

জন্মসূত্রে শিখ ধর্মের অনুসারী ছিলেন বলিউড অভিনেত্রী অমৃতা সিং। ১৯৮৩ সালে ‘বেতাব’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। এরপর তার অভিনেত্রী ‘সানি’ ‘মারদ’ ‘সাহেব’ ছবিগুলো দারুণ ব্যবসা সফল হয়। পরবর্তীতে তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে অভিনেতা সাইফ আলি খানকে বিয়ে করেন। যদিও বিয়েটি শেষ পর্যন্ত টিকেনি।

 

 

হ্যান্স রাজ হ্যান্স :

জনপ্রিয় ভারতীয় গায়ক হ্যান্স রাজ হ্যান্স। হিন্দু ধর্মের হলেও নিজের ধর্ম পরিবর্তন করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন তিনি। মূলত সুফি সঙ্গীতের প্রতি আকৃষ্টতা থেকেই ইসলাম ধর্মের প্রতি দুর্বলতা তৈরি হয় তার। পরবর্তীতে ইসলামের ইতিহাসের ওপর ব্যাপক পড়াশোনা করেন তিনি। ধর্ম পরিবর্তনের পর মদিনা সফরের পরিকল্পনা করছেন বলেও জানা গেছে। উল্লেখ্য, ‘আজা নাচলে’ ‘দিল টুটে টুটে’ প্রভৃতি জনপ্রিয় গানের গায়ক হ্যান্স।

 

 

জুভান শংকর রাজা :

কিংবদন্তি সঙ্গীত শিল্পী ইলাইয়া রাজার পুত্র জুভান শংকর রাজা। কিন্তু শুধু পিতার নামেই পরিচিত নন জুভান। কম বয়সী গীতিকার হিসেবে তার খ্যাতি বিশ্বজুড়ে। মাত্র ১৬ বছর বয়সেই প্রথম গানের কম্পোজ করেন তিনি। জুভানের পিতা ইলাইয়া রাজা ছিলেন কট্টর হিন্দু। মূলত কোরআন পড়ে অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেছেন। পরবর্তীতে তিনি ইসলাম ধর্ম চর্চা শুরু করেন। পারিপারিকভাবে তার ধর্ম পরিবর্তনের বিষয় মেনে না নিলেও তিনি মুসলিম ধর্মে পথই বেছে নিয়েছেন।

 

 

আয়েশা তাকিয়া :

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী আয়শা তাকিয়া। পারিবারিকভাবে ভিন্ন ধর্মে বেড়ে উঠেছেন এ অভিনেত্রী। বাবা ছিলেন হিন্দু আর মা ছিলেন ব্রিটিশ-ইন্ডিয়ান। হিন্দু হয়েও আয়েশা তাকিয়া দীর্ঘ সময় প্রেম করেছেন মুসলিম প্রেমিক ফারহান আজমির সঙ্গে। এরপর ২০০৯ সালে ওই জুটি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের আগেই আয়েশা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। যদিও তিনি কখন ওই ধর্মান্তরের বিষয়টি প্রকাশ করেননি। তবে তার ধর্মান্তরিত হওয়ার বিষয়ে প্রমাণ পাওয়া গেছে। মিকাইল আজমি নামে তাদের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে।

 

 

 

মমতা কুলকার্নি :

৯০’র দশকে বেশ কয়েকটি হিন্দি সুপার হিট ছবির নায়িকা মমতা কুলকার্নি। অভিনয়ের পাশাপাশি তার সৌন্দর্যেও দ্যুতি ছড়িয়েছে। আরও সেক্স-সিম্বল হিসেবে নাম কুড়িয়েছেন। সেই মমতা কুলকার্নি হঠাৎ করেই পর্দা থেকেই উধাও! পরবর্তীতে কারণ হিসেবে দেখা গেছে ২০১৩ সালে মমতা মুসলিম প্রেমিককে বিয়ে করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। বর্তমানে স্বামীকে নিয়ে কেনিয়ার নাইরোবিতে বসবাস করছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *